হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা শিক্ষা আইন পাশ, ডিগ্রিধারীদের ডাক্তার পদবি


শিক্ষা সংবাদ প্রকাশের সময় : নভেম্বর ২, ২০২৩, ৮:৩৫ অপরাহ্ণ /
হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা শিক্ষা আইন পাশ, ডিগ্রিধারীদের ডাক্তার পদবি

জাতীয় সংসদে ‘বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা শিক্ষা আইন ২০২৩’ পাশ হয়েছে। এর মাধ্যমে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসাশাস্ত্রে ডিগ্রিধারীরা এখন থেকে নামের আগে ডাক্তার পদবি ব্যবহার করতে পারবেন। তবে কেউ যদি চিকিৎসা শিক্ষা যোগ্যতা ব্যতীত অন্য কোনো কোর্সের নাম, ডিগ্রি, সনদ, উপাধি, পদবি, বিবরণ বা প্রতীক ব্যবহার ও প্রচার অপরাধ হবে, সে কারণে তিনি (চিকিৎসক) অনধিক এক বছর কারাদন্ণ্ড বা অনধিক এক লাখ টাকা অর্থদন্ড অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন।

সামরিক আমলে জারিকৃত ‘দ্য বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক প্র্যাকটিশনার্স অর্ডিন্যান্স, ১৯৮৩’ রহিতক্রমে নতুনভাবে আধুনিক ও যুগোপযোগী করে বাংলায় এই আইন প্রণয়ন করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২ নভেম্বর) স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেকের অনুপস্থিতিতে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন আইনটি পাশের জন্য জাতীয় সংসদে উপস্থাপন করেন। পাশাপাশি হোমিও চিকিৎসা শিক্ষা ও প্রয়োজনীয়তার গুরুত্ব উল্লেখ করে কয়েকজন সংসদ সদস্য আলোচনা করেন। পরে কণ্ঠভোটের মাধ্যমে আইনটি পাশ হয়। এর আগে গত ২৩ অক্টোবর স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জাতীয় সংসদে বিলটি উত্থাপনের প্রস্তাব করেছিলেন।

আইনে বলা হয়েছে, অর্জিত চিকিৎসা শিক্ষা যোগ্যতা ব্যতীত অন্য কোনো কোর্সের নাম, ডিগ্রি, সনদ, উপাধি, পদবি, বিবরণ বা প্রতীক ব্যবহার ও প্রচার অপরাধ হবে, সে কারণে তিনি (চিকিৎসক) অনধিক এক বছর কারাদন্ণ্ড বা অনধিক এক লাখ টাকা অর্থদন্ড অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন।

আইনের বিধান লঙ্ঘন করে হোমিওপ্যাথিক ফার্মাকোপিয়াতে অন্তর্ভুক্ত নেই, এমন কোনো ওষুধ চিকিৎসা ব্যবস্থাপত্রে লিখলে বা বললে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি অনধিক এক বছর কারাদন্ণ্ড বা অনধিক ১ লাখ টাকা অর্থদণ্ড অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

প্রসঙ্গত, এর আগে হোমিওপ্যাথিক ও ইউনানি চিকিৎসকরা নামের আগে ডাক্তার পদবি লিখতে পারবেন না মর্মে নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। এই আইন পাশের মাধ্যমে নামের আগে চিকিৎসক পদবি ব্যবহারে বাধা দূর হলো।