জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে সেশনজট কমাতে অ্যাসাইনমেন্ট নেওয়া ও এমসিকিউ পদ্ধতিতে সংক্ষিপ্ত পরীক্ষার চিন্তা

0
253
বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য যোগাযোগ করুন : ০১৭১৭১২৪৬৪৬

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে অধীনে স্নাতক (পাস) কোর্সের দ্বিতীয়বর্ষের পরীক্ষা দেড় বছরেও শেষ হয়নি। অধিকাংশ পরীক্ষা শেষ করা হলেও করোনাভাইরাসের কারণে ঐচ্ছিক পরীক্ষাগুলো স্থগিত হয়ে রয়েছে। এ জন্য ফলাফল প্রকাশ করতে পারছে না জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়।

বর্তমানে তাদের অনলাইনে এমসিকিউ পদ্ধতিতে পরীক্ষা নেয়ার কথা ভাবা হচ্ছে। তার সঙ্গে অ্যাসাইনমেন্ট দিয়ে এ পর্যায়ের ফলাফল প্রকাশ করে পরের ধাপে পদোন্নতি দেয়া হতে পারে বলে জানা গেছে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে জানা গেছে, সারা দেশে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে দুই হাজার ২৫৮টি কলেজে ২৯ লাখের বেশি শিক্ষার্থী রয়েছে। তার মধ্যে স্নাতক (পাস) কোর্সের প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় পর্যায়ে মোট ৬ লাখ শিক্ষার্থী রয়েছে। তাদের মধ্যে প্রথমবর্ষের ফল প্রকাশ করা হলেও দেড় বছর ধরে তারা দ্বিতীয়বর্ষে ভর্তির অপেক্ষায় রয়েছেন।

জানা গেছে, ডিগ্রি পাস কোর্সের দ্বিতীয়বর্ষের অধিকাংশ পরীক্ষা নেয়া হলেও কয়েকটি পরীক্ষা স্থগিত রয়েছে। আরও ১০-১২ দিন পরীক্ষা নিলে শেষ করা সম্ভব হবে। এ জন্য এক লাখ ৯৬ হাজার শিক্ষার্থী পরীক্ষার জন্য অপেক্ষায় রয়েছেন। তৃতীয়বর্ষের ফরমপূরণ শেষ হলেও তাদের ক্লাস শুরু হয়নি। করোনার কারণে ছয় লাখ শিক্ষার্থী দুই বছরের সেশনজটে পড়েছেন।

জানতে চাইলে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. মশিউর রহমান বলেন, ডিগ্রি (পাস) কোর্সের শিক্ষার্থীদের সেশনজট কমাতে নতুন চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে। আমরা দুই ধরনের পরীক্ষা পদ্ধতির কথা ভাবছি। আগের পরীক্ষা পদ্ধতি পরিবর্তন করে শিক্ষকদের কাছে অ্যাসাইনমেন্ট জামা দেয়া ও এমসিকিউ পদ্ধতিতে সংক্ষিপ্ত পরীক্ষা নিয়ে ফলাফল প্রকাশ করা। এ জন্য নতুন পরীক্ষা পদ্ধতি চালু করতে হবে।

তিনি বলেন, এ পর্যায়ের স্থগিত পরীক্ষাগুলো শেষ করতে আমরা আরও কিছুদিন অপেক্ষা করব। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে প্রয়োজনে পরীক্ষা কেন্দ্র বাড়িয়ে ধীরে ধীরে বাকি পরীক্ষাগুলো করা হতে পারে। বিষয়গুলো আমাদের চিন্তা-ভাবনার রয়েছে। পরিস্থিতি বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানান উপাচার্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here