free web tracker
Breaking News
Home / মাদ্রাসা শিক্ষা / মাদ্রাসা ১ম থেকে দাখিল ৯ম শ্রেণির অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ

মাদ্রাসা ১ম থেকে দাখিল ৯ম শ্রেণির অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ

দেশে অধ্যায়নরত সকল স্তরের মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের জন্য প্রথম এসাইনমেন্ট প্রকাশ করেছে মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর। মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর এর ০১ নভেম্বর ২০২০ তারিখে COVID-19 পরিস্থিতিতে এবতেদায়ী প্রথম শ্রেণী থেকে দাখিল নবম শ্রেণী পর্যন্ত পুনর্বিন্যাসের আলোকে মূল্যায়ন নির্দেশিকাসহ অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ করা হয়।

অধিদপ্তরের প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে শিক্ষার্থীদের জন্য এবতেদায়ী ১ম থেকে দাখিল ৯ম শ্রেণি পর্যন্ত ১ম অ্যাসাইনমেন্ট (নির্ধারিত কাজ), মূল্যায়ন পদ্ধতি, শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও শিক্ষকগণের করণীয় সম্পর্কে বিস্তারিত উল্লেখ করা হয়।

মাদ্রাসা অধিদপ্তরের প্রকাশিত মূল্যায়ন নির্দেশিকাটি এই পোস্টের শেষে ডাউনলোড বাটনে ক্লিক করে ডাউনলোড করে নিতে পারবেন।

মাদ্রাসায় প্রকাশিত মূল্যায়ন নির্দেশিকাটি হল :

এ বছর ১৬ মার্চ পর্যন্ত ক্লাস হওয়ার পর কোভিড-১৯ মহামারির কারণে ১৮/০৩/২০২০ তারিখ থেকে সকল মাদ্রাসায় শ্রেণি কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।

এতে স্বাভাবিক শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত হয়েছে; তাই ২০২০ শিক্ষাবর্ষের নির্ধারিত পাঠ্যসূচি কোথাও যথাযথভাবে বা পুর্ণাঙ্গভাবে সম্পন্ন করা সম্ভব হয়নি। এ কারণে পাঠ্যসূচিকে সংক্ষিপ্ত করে পূনর্বিন্যাস করা হয়েছে।

সরকারি উদ্যোগে শিক্ষার্থীদের শিখন প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখার জন্য সংসদ বাংলাদেশ টেলিভিশনে কিছু শ্রেণি কার্যক্রম প্রচার করা হয়েছে; অনেক মাদ্রাসা নিজেদের উদ্যোগে অনলাইনে শ্রেণি কার্যক্রম পরিচালনা করেছে।

অনেক ক্ষেত্রে প্রশাসনের উদ্যোগে জেলা ও উপজেলায় অনলাইনে শ্রেণি কার্যক্রম চালু করা হয়েছে। কোথাও শিক্ষকবৃন্দ মােবাইল ফোনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের পাঠদান করার চেষ্টা করছেন।

এছাড়াও কিশাের বাতায়নসহ বেশ কিছু ডিজিটাল প্লাটফর্মে কিছু শ্রেণি কার্যক্রম আপলােড করা হয়েছে যাতে করে বাংলাদেশের যে কোনাে প্রান্তের শিক্ষার্থী ব্যবহার করতে পারে।

করােনার এই মহামারিকালে হঠাৎ করে নতুন ধরনের শিখন শেখানাে কার্যক্রম অনুসরণ করাতে শিক্ষার্থীরা প্রয়ােজনীয় শিখনফল অর্জন করতে অনেকক্ষেত্রে সক্ষম হয়নি।

এমতাবস্থায় শিক্ষার্থী যেন আরােও কিছু শিখনফল অর্জন করে পরবর্তী শ্রেণির জন্য প্রস্তুত হতে পারে; সেজন্য এনসিটিবি কর্তৃক পাঠ্যসূচির পুনর্বিন্যাস ও অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজের মাধ্যমে মূল্যায়নের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এই মূল্যায়নের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের শিখনফল অর্জনের ক্ষেত্রে সবলতা ও দুর্বলতা চিহ্নিত করে পরবর্তী শ্রেণিতে প্রয়ােজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

প্রতি সপ্তাহে শুরুতে ঐ সপ্তাহের জন্য অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ দিয়ে দেওয়া হবে। সপ্তাহ শেষে শিক্ষার্থীরা তাদের অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ শেষ করে স্ব স্ব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জমা দিয়ে পরবর্তী সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ গ্রহণ করবে এবং সপ্তাহের মধ্যে কাজ শেষ করে জমা দিবে।

এভাবে মােট ৬ সপ্তাহব্যাপী শিক্ষার্থীরা উক্ত কার্যক্রম সম্পন্ন করবে।

উল্লেখ্য যে, শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যঝুঁকি ও নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে সরকার ইতােমধ্যে প্রথাগত বার্ষিক পরীক্ষা ছাড়াই পরবর্তী শ্রেণিতে উত্তীর্ণের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।

অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজসমূহ মূল্যায়নের জন্য নিচের নির্দেশনাসমূহ অনুসরণ করতে হবে:

১. জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা/উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাগণের জন্য নির্দেশনা-

ক. প্রতিটি প্রতিষ্ঠান সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে কার্যক্রম পরিচালনা করছেন তা নিশ্চিত করতে হবে।

খ. এ মূল্যায়ন কার্যক্রম ১লা নভেম্বর ২০২০ তারিখ হতে প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে কার্যকর হবে।

গ. অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজের মাধ্যমে শিক্ষার্থী মূল্যায়নের যথার্থতা ও নির্ভরযােগ্যতা নিশ্চিত করতে হবে।

ঘ, মূল্যায়ন শেষে শিক্ষার্থীদের দুর্বল দিক চিহ্নিত করে শিক্ষকগণ সুনির্দিষ্ট মন্তব্য করছেন কিনা তা পরিবীক্ষণ করতে হবে।

ঙ. প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের শ্রেণি ও বিষয়ভিত্তিক মূল্যায়ন রেকর্ড সংরক্ষণ নিশ্চিত করতে হবে।

চ. এ কার্যক্রমে শিক্ষার্থী যেন কোনাে অনৈতিক চাপের মুখােমুখি না হয় তা লক্ষ রাখতে হবে।

ছ, এতদ্‌সংক্রান্ত কোনাে স্পষ্টীকরণ প্রয়ােজন হলে সহযােগিতা করতে হবে।

জ, ১লা নভেম্বর ২০২০ তারিখ থেকে ৩১ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখ পর্যন্ত নির্ধারিত অ্যাসাইনমেন্ট বা কাজ ছাড়া শিক্ষার্থীদের অন্য কোনাে ধরনের পরীক্ষা বা বাড়ির কাজ যেন না দেয়া হয় তা নিশ্চিত করতে হবে।

ঝ, মূল্যায়ন বিষয়ক এ নির্দেশনা প্রতিষ্ঠান প্রধান কর্তৃক অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের নিকট পৌছানাের বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।

প্রতিষ্ঠান প্রধানগণের জন্য নির্দেশনা:

ক, সর্বাগ্রে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকগণের স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করতে হবে।

খ. শিক্ষার্থী মূল্যায়ন কার্যক্রমে সকল বিষয়ভিত্তিক শিক্ষকসহ অন্যান্য শিক্ষক ও কর্মচারীদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে।

গ. মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর, আঞ্চলিক, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের শিক্ষা কর্মকর্তাগণ উক্ত মূল্যায়ন কার্যক্রমের কার্যকারিতা ও ফলপ্রসূতা যাচাইয়ে শিক্ষার্থী প্রদত্ত অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ মূল্যায়ন প্রক্রিয়া পরিবীক্ষণ করবেন।

সে জন্য এগুলাে যথাযথভাবে সংরক্ষণ করতে হবে।

ঘ. কোনাে শিক্ষার্থী যেন অনৈতিক কোনাে চাপের মুখােমুখি না হয় তা নিশ্চিত করতে হবে। এ বিষয়ে প্রয়ােজনে স্থানীয় শিক্ষা কর্মকর্তাগণের সাথে যােগাযােগ করা যেতে পারে।

৬, ১লা নভেম্বর ২০২০ তারিখ থেকে ১৫ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখের মধ্যে অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ প্রদান ও জমা নেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।

চ. অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজের ক্ষেত্রে সরবরাহকৃত গ্রিড (মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর এবং মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর কর্তৃক ওয়েবসাইটে প্রকাশিত) অনুসরণ করতে হবে।

ছ. সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য প্রয়ােজনে অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ জমা রাখার জন্য বক্সের ব্যবস্থা করা যেতে পারে।

জ, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য নির্দিষ্ট দিনে ও সময়ে শ্রেণিভিত্তিক অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ জমা ও পরবর্তী কাজ বিতরণ করতে হবে।

ঝ, নােট, গাইড, অনলাইন বা অন্য কারাে লেখা থেকে নকল করে অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ জমা দিলে তা বাতিল করে পুনরায় অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ জমা দেওয়ার নির্দেশ দিতে হবে।

ঞ. ১লা নভেম্বর ২০২০ তারিখ থেকে ৩১ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখ পর্যন্ত নির্ধারিত অ্যাসাইনমেন্ট বা কাজ ছাড়া শিক্ষার্থীদের অন্যকোনাে ধরনের পরীক্ষা বা বাড়ির কাজ যেন না দেয়া হয় তা লক্ষ রাখতে হবে।

ট, এ নির্দেশনা শিক্ষক, অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের নিকট পৌছানাে নিশ্চিত করতে হবে ।

৩. শিক্ষকগণের জন্য নির্দেশনা :

ক. প্রযােজ্য ক্ষেত্রে প্রতি সপ্তাহে ২/৪টি অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ (মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর এবং মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর কর্তৃক ওয়েবসাইটে প্রকাশিত) দিতে হবে।

খ. নির্ধারিত বিষয়সমূহের প্রস্তাবিত অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ জমা নেওয়া, মূল্যায়ন করা, মূল্যায়নকারীর মন্তব্যসহ – অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজসমূহ শিক্ষার্থীদেরকে দেখানাে এবং প্রতিষ্ঠানে সেটি সংরক্ষণের কাজটি ৩১ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখের মধ্যে সম্পন্ন করতে হবে।

গ. এ কার্যক্রমে সকল শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে।

ঘ. প্রতিটি মাদ্রাসায় মূল্যায়ন রেকর্ড যথাযথভাবে সংরক্ষণ করতে হবে।

ঙ. অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজের আওতায় ব্যাখ্যামূলক প্রশ্ন, সংক্ষিপ্ত উত্তর প্রশ্ন, সৃজনশীল প্রশ্ন, প্রতিবেদন প্রণয়ন ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। মূল্যায়ন নির্দেশ অনুযায়ী এগুলাের মূল্যায়ন করতে হবে।

চ. শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ সাদা কাগজে স্বহস্তে লিখে জমা দেওয়া নিশ্চিত করতে হবে।

ছ, অভিভাবক বা তার প্রতিনিধি স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে প্রতি সপ্তাহে একদিন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ সংগ্রহ করবেন ও জমা দিবেন।

জ, শিক্ষার্থীর লেখায় তার মৌলিক চিন্তা, কল্পনা ও সৃজনশীলতা প্রতিফলিত হয়েছে কি-না শিক্ষক তা বিশেষভাবে লক্ষ করবেন।

ঝ. প্রদত্ত উত্তরের প্রয়ােজনীয় তথ্য, তত্ত্ব, ধারণা, সূত্র, ব্যাখ্যা ইত্যাদি পাঠ্যপুস্তকের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ হতে হবে।

ঞ, প্রত্যেক শিক্ষার্থীর প্রতি বিষয়ের প্রতিটি অ্যাসাইনমেন্ট বা কাজ মূল্যায়ন করে তার সকল সবল/দুর্বল দিকগুলাে খাতায় চিহ্নিত করতে হবে; এবং এমনভাবে মন্তব্য লিখতে হবে যাতে শিক্ষার্থী তার সবল ও দুর্বল দিকগুলাে স্পষ্টভাবে বুঝতে এবং করতে পারে।

ট, মূল্যায়ন করার পর শিক্ষক তার মতামতসহ অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ শিক্ষার্থীদের দেখানাের ব্যবস্থা করবেন এবং একটি নির্দিষ্ট সময় শেষে সেটি ফেরত এনে প্রতিষ্ঠানে সংরক্ষণ করবেন।

ঠ, শিক্ষক একটি শ্রেণির একটি বিষয়ের সবগুলাে অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ এর সামগ্রিক মূল্যায়নের উপর ভিত্তি করে অতি উত্তম, উত্তম, ভালাে ও অগ্রগতি প্রয়ােজন এরূপ মন্তব্য করবেন ।

এগুলাে পরিমাপের নির্দেশক নিচে দেওয়া হলাে:

  • ক. অতি উত্তম
  • খ. উত্তম

১, বিষয়বস্তুর সঠিকতা ও ধারাবাহিকতা।

২. তথ্য, তত্ত্ব, ধারণা, সূত্র ইত্যাদি পাঠ্যপুস্তকের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ |

৩. লেখায় লক্ষণীয় মাত্রায় নিজস্বতা ও সৃজনশীলতা

১. বিষয়বস্তুর সঠিকতা ও ধারাবাহিকতা

২. তথ্য, তত্ত্ব, ধারণা, সূত্র ইত্যাদি পাঠ্যপুস্তকের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ

৩. লেখায় আংশিক নিজস্বতা ও সৃজনশীলতা

১. বিষয়বস্তুর সঠিকতা থাকলেও ধারাবাহিকতার অভাব

২. লেখায় তথ্য, তত্ত্ব, ধারণা, সূত্র ইত্যাদি আংশিকভাবে সঙ্গতিপূর্ণ

৩. লেখায় সামান্য মাত্রায় নিজস্বতা ও সৃজনশীলতা।

১. বিষয়বস্তুর সঠিকতা ও ধারাবাহিকতার অভাব।

২. লেখায় তথ্য, তত্ত্ব, ধারণা, সূত্র ইত্যাদি সঙ্গতিপূর্ণ নয়

৩. লেখায় নিজস্বতা ও সৃজনশীলতার অভাব

  • গ. ভালাে
  • ঘ. অগ্রগতি প্রয়ােজন

৪. অভিভাবকগণের প্রতি পরামর্শ :

ক, শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণে উৎসাহিত করা।

খ. শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজের মূল্যায়ন প্রক্রিয়া তাদের শিখন অর্জন যাচাই এবং কোন কোন ক্ষেত্রে তাদের ঘাটতি রয়েছে তা নিরূপণ করা। তাই শিক্ষার্থী নিজে যাতে এ কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করে তা নিশ্চিত করা।

গ. শিক্ষার্থীর অনুধাবন ক্ষমতা ও সৃজনশীলতা বৃদ্ধির জন্য তাদের সক্রিয় অংশগ্রহণে উৎসাহিত করা।

ঘ. শিক্ষার্থী যেন সময়মত অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ সম্পন্ন করে এবং তা যেন নির্ধারিত সময়ে জমা দেয় তা নিশ্চিত করা।

ঙ. নােট, গাইড, অনলাইন বা অন্য কারাে লেখা থেকে হুবহু লিখে অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ জমা দিলে তা বাতিল হবে তাই শিক্ষার্থীদের নিজেদের মত করে লেখার প্রতি উৎসাহিত করা।

৫. শিক্ষার্থীদের জন্য পরামর্শ ক. শিক্ষার্থীদের শিখনফল অর্জনই মুল উদ্দেশ্য। পরবর্তী শ্রেণির পাঠ গ্রহণের ক্ষেত্রে এটি সুবিধা প্রদান করবে। তাই এটি অনুসরণ করা জরুরি বিবেচনা করতে হবে।

খ. অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ তৈরি করতে এনসিটিবি প্রণীত ও প্রকাশিত ২০২০ শিক্ষাবর্ষের পাঠ্যপুস্তক ব্যবহার করলেই চলবে ।

গ. মূল্যয়নের ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের নিজস্বতা, স্বকীয়তা ওসৃজনশীলতা যাচাই করা হবে। তাই নােট, গাইড বা অন্যের লেখা দেখে অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ জমা দিলে তা বাতিল হয়ে যাবে এবং পুনরায় সেই অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ জমা দিতে হবে।

ঘ. অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ নিজের হাতে লিখতে হবে। এতে হাতের লেখার যেমন অনুশীলন হবে তেমনি বিষয়টি বুঝতেও সুবিধা হবে।

ঙ. অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ লেখার ক্ষেত্রে যে কোনাে কাগজ ব্যবহার করলেই চলবে। তবে ১ম পৃষ্ঠায় নাম, শ্রেণি, রােল নম্বর, বিষয় , অ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজের শিরােনাম স্পষ্টভাবে লিখতে হবে।

About শিক্ষা সংবাদ

প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক, মাদ্রাসা, কারিগরি শিক্ষা বোর্ড, মেডিকেল, উন্মুক্ত, জাতীয়, ইসলামি আরবি, ডিজিটাল, টেক্সটাইল, মেরিটাইম, এভিয়েশন এন্ড এরোস্পেস, প্রকৌশল ও প্রযুক্তি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, কৃষি ও ভেটেরিনারি বিশ্ববিদ্যালয় সহ সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি, পরীক্ষা, ফলাফল, পুনঃনিরীক্ষণ, পুনঃপরীক্ষা ও রেজিস্ট্রেশন, রিলিজ স্লিপে আবেদন সংক্রান্ত সকল খবর।

Check Also

কাতার প্রবাসীদের উম্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ, ই-মেইল আবেদন ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত (বিস্তারিত দেখুন)

বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাউবি) বহিঃবাংলাদেশ প্রােগ্রামের বিভিন্ন কোর্সে অংশগ্রহণে ইচ্ছুক কাতারে অবস্থানরত বাংলাদেশী নাগরিকদের আবেদন …

৬৪টি সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজে ২০২১ শিক্ষাবর্ষ থেকে ৬ষ্ঠ – ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত চালুর চিন্তা

দেশের ৬৪টি সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজে ২০২১ শিক্ষাবর্ষ থেকে ৬ষ্ঠ থেকে ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত …

One comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »